প্রাচীন ভারতের ইতিহাস জিকে প্রশ্ন

71. “চন্দ্রগুপ্ত কুমারদেবী”- মুদ্রা কোন গুপ্ত রাজার?
(A) শ্রীগুপ্তের
(B) সমুদ্রগুপ্তের
(C) স্কন্দগুপ্তের
(D) প্রথম কুমার গুপ্তের (414-454 খ্রি:)।

Ans- (B) সমুদ্রগুপ্তের (335/40 – 375/380 খ্রি:)।

72. প্রথম “রৌপ্য মুদ্রা”- কোন গুপ্ত রাজা চালু করেন?
(A) সমুদ্রগুপ্ত
(B) স্কন্দগুপ্ত
(C) দ্বিতীয় চন্দ্রগুপ্ত
(D) প্রথম কুমার গুপ্ত
Ans- (C) দ্বিতীয় চন্দ্রগুপ্ত (380 খ্রি: – 414 খ্রি:)।

73. স্কন্দগুপ্তের উপাধি কি ছিলো?
(A) বিক্রমাদিত্য
(B) শত্রুহন্তা
(C) লিচ্ছবি দৌহিত্র
(D) শ্রেষ্ঠ বীর
Ans- (A) বিক্রমাদিত্য
(বিক্রমাদিত্য শব্দের অর্থ হলো “ক্ষমতার সূর্য।
স্কন্দগুপ্তের সময়কাল(455 – 467)
আর একজন গুপ্ত সম্রাট বিক্রমাদিত্য উপাধি নিয়েছিলেন তিনি হলেন দ্বিতীয় চন্দ্রগুপ্ত(380-414 খ্রি:)।

74. স্কন্দগুপ্তের প্রধান সেনাপতি কে ছিলেন?
(A) উদয় চাঁদ
(B) ভীম সেন
(C) চারুচন্দ্র
(D) ভীম দত্ত
Ans- (D) ভীম দত্ত
(কৌশান্বীর ভীম দত্ত)।

75. দ্বিতীয় কুমার গুপ্ত কে ছিলেন?
(A) উজ্জয়নীর গভর্নর
(B) পুরুগুপ্তের পৌত্র
(C) পাটলিপুত্রের গভর্নর
(D) গুপ্তদের একজন সামন্ত
Ans- (B) পুরুগুপ্তের পৌত্র
(দ্বিতীয় কুমার গুপ্ত বৈষ্ণব ধর্মের অনুরাগী ছিলেন)।

76. গুপ্তবংশের শেষ পরাক্রান্ত শাসক কে ছিলেন?
(A) স্কন্দগুপ্ত
(B) বুধগুপ্ত
(C) বিষ্ণুগুপ্ত
(D) ভানুগুপ্ত
Ans- (A) স্কন্দগুপ্ত (455-467খ্রি:)।

77. গুপ্তবংশের শেষ শক্তিশালী সম্রাট কে ছিলেন?
(A) স্কন্দগুপ্ত
(B) বুধগুপ্ত
(C) বিষ্ণুগুপ্ত
(D) ভানুগুপ্ত
Ans- (B) বুধগুপ্ত

78. গুপ্তবংশের শেষ সম্রাট কে ছিলেন?
(A) স্কন্দগুপ্ত
(B) বুধগুপ্ত
(C) বিষ্ণুগুপ্ত
(D) ভানুগুপ্ত
Ans- (C) বিষ্ণুগুপ্ত

79. নীচের কোনটি বরাহমিহিরের রচিত গ্রন্থ?
(A) পঞ্চসিদ্ধান্ত
(B) বৃহৎসংহিতা
(C) বৃহৎজাতক
(D) উপরের সবগুলিই
Ans- (D) উপরের সবগুলিই
(বরাহমিহির ছিলেন গুপ্তযুগের একজন বিশিষ্ট “গ্রহ-নক্ষত্রবীদ-বিজ্ঞানী”। মোটামুটি ভাবে তার খ্রীষ্টীয় ষষ্ঠশতকে আবির্ভাব ঘটে।তিনি জ্যোতির্বিজ্ঞানকে তিনি জ্যোতির্বিদ্যা-গণিত- জ্যোতিষচর্চা এই তিনভাগে বিভক্ত করেন।
তার বিখ্যাত গ্রন্থ হলো- “পঞ্চসিদ্ধান্ত বা পঞ্চসিদ্ধান্তিকা” এটি জ্যোতির্বিদ্যা ও গণিতের উপর লিখিত গ্রন্থ।ফলিত-জ্যোতিষের উপর রচিত বরাহমিহিরের বিখ্যাত গ্রন্থ হলো- বৃহৎসংহিতা)।

80. “সূর্যসিদ্ধান্ত”- কার রচনা?
(A) আর্যভট্টের
(B) ব্রম্মগুপ্তের
(C) বরাহমিহিরের
(D) সুশ্রুতের
Ans- (A) আর্যভট্টের
(আর্যভট্ট গুপ্তযুগের একজন বিশিষ্ট বিজ্ঞানী।খ্রীষ্টীয় পঞ্চম-ষষ্ঠ শতকে এই মানুষটি গ্রহ-নক্ষত্র-বিজ্ঞান ও অঙ্কশাস্ত্রের উপর ব্যুৎপত্তি ছিলো।পৃথিবী সূর্যের চারিদিকে ঘোরে, আহ্নিক ও বার্ষিক গতির আবিস্কার, সংখ্যাতত্ব ও শূণ্যের ব্যবহার তার কীর্তি।
তার বিখ্যাত গ্রন্থ “সূর্যসিদ্ধান্ত”-যাতে সূর্য ও চন্দ্রগ্রহনের প্রকৃত কারণ ব্যাখ্যা আছে। এছাড়াও “আর্যভট্টীয়”, “দশগীতিকার সূত্র” এবং “আর্যাস্টশত”- নামে তিনটি গ্রন্থ লেখেন।”আর্যভট্টীয়” গ্রন্থে পাটিগণিত, বীজগণিত, জ্যামিতি ও ত্রিকোনোমিতি সংক্রান্ত বিস্তৃত আলোচলা আছে)।