ভারত-নেপাল সীমান্ত থেকে গ্রেফতার ইন্ডিয়ান মুজাহিদিন জঙ্গি আরিজ খান৷


ভারত-নেপাল সীমান্ত থেকে দিল্লি পুলিশ গ্রেফতার করলেন ইন্ডিয়ান মুজাহিদিনের  (আইএম) একজন সন্দেহভাজন  জঙ্গি  আরিজ খানকে ।

এই আরিজ  খান, উত্তর প্রদেশ, গুজরাট, দিল্লিতে সিরিয়াল বিস্ফোরণে জড়িত ছিলেন এবং বাটলা হাউস এনকাউন্টারের সময় পালিয়ে গিয়েছিল৷ প্রায় এক দশকেরও বেশি সময় ধরে খোঁজ চলছিল এই জঙ্গীর । বিভিন্ন  রাজ্য ও রাষ্ট্রীয়  পুলিশ বাহিনীর রাডার এবং এনআইএর রাডার দীর্ঘদিন ধরে খোঁজ করছিল এই জঙ্গীর ৷

ইন্ডিয়ান মুজাহিদিন (আইএম) এবং অন্যান্য সন্ত্রাসবাদী সংগঠনের সঙ্গে যুক্ত সন্দেহভাজন সন্ত্রাসীদের জিজ্ঞাসাবাদ করে এবং অন্যান্য বিভিন্ন সূত্র ধরে গতকাল সন্ধ্যায় ভারত-নেপাল সীমান্ত থেকে এই জঙ্গিকে গ্রেফতার করে দিল্লি পুলিশের বিশেষ সেল। আজ একথা সংবাদ মাধ্যমে বলেন ডিসিপি  (বিশেষ সেল) পিএস কুশওয়া৷

গ্রেফতারের পর দিল্লি পুলিশের স্পেশাল সেলের একটি বিশেষ আদালতে আরিজ  খান ওরফে জুনায়েদকে বৃহস্পতিবার সন্ত্রাসবাদী হিসেবে অভিযুক্ত করা হয়।
“গত কয়েক মাসে, বিভিন্ন সূত্রের মাধ্যমে পাওয়া গেছে যে আইএম এবং সিএমআই-এর সন্ত্রাসীরা নিরন্তরভাবে  নেপালে তাদের ভিত্তি স্থাপন করে চলেছে  এবং বেকার যুবকদের নিয়োজিত করতে ভারতের বিভিন্ন স্থান ঘুরে দেখছে”। জানা যায় যে সংগঠনগুলি নতুন নিয়োগ করছে, কারণ তাদের বেশিরভাগ নেতাকে ইতিমধ্যে পুলিশ গ্রেপ্তার করেছে। “ধৃত জঙ্গি আরিজ  খান ইন্ডিয়ান মুজাহিদিনের দুর্বল ও ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা নেটওয়ার্ক পুনরুজ্জীবনের পরিকল্পনা করছিল “।

এদিকে, এসপি গোবিন্দ শর্মার নেতৃত্বে স্পেশাল সেল টিম ২018 সালের জানুয়ারিতে সিমির আদর্শবাদী আবদুল সুবহান ওরফে আবদুস সুবহান ওরফে তোউকিরকে গ্রেপ্তার করে। ২018 সালের জানুয়ারিতে তৌকির খান গ্রেফতার হলে তার কাছ থেকে অনেক মূল্যবান তথ্য জানতে পারেন গোয়েন্দারা৷

কয়েক দিন আগে, একটি নির্দিষ্ট তথ্য থেকে জানা যায় যে খান একজন সহযোগীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করতে ভারত-নেপাল সীমান্তের বানবাশা থেকে ইউপি তে আসছে। তখনি চন্দ্রিকা প্রসাদ, অমূল্য  ত্যাগী, রবীন্দ্র জোশি ও সਤੀশ রানা সহ বিশেষ সেলের একটি দল ভারত -নেপাল সীমান্তের বানবাসের নিকটবর্তী এলাকায় চলে যায় এবং একটি ফাঁদ তৈরি করে।

পুলিশ জানায়, 13 ফেব্রুয়ারি খিলগাঁওয়ের সীমান্ত এলাকার নিকটবর্তী এলাকায় নজরদারির পর শারদা ইন্টার কলেজ, বানবাশা, নেপাল রোডের কাছে 5টা নাগাদ গ্রেফতার করা হয় আরিজকে ।

ভারতে সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড পরিচালনার জন্য এবং  ২007-২008 সালে দিল্লি, গুজরাট, উত্তরপ্রদেশ, রাজস্থানে  সিরিয়াল  বিস্ফোরণের জন্য NIA এবং এই রাজ্যগুলির পুলিশ দীর্ঘদিন ধরে খোঁজ চালাচ্ছিল এই জঙ্গির ৷ গোয়েন্দাদের ধারণা একে জেরা করে জঙ্গিদের  অনেক গোপন তথ্যই হাসিল করা যাবে ৷

লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ


Leave a Reply